আস্ক প্রশ্নে আপনাকে স্বাগতম ! এটি একটি প্রশ্নোত্তর ভিত্তিক কমিউনিটি। এই সাইট সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন ...
86 বার প্রদর্শিত
"ইসলাম ধর্ম" বিভাগে করেছেন (2,716 পয়েন্ট) 25 145 479

1 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (3,317 পয়েন্ট) 46 155 377
অযুর চারটি ফরজ আছে । এর যে কোন একটি বাদ গেলে অযু হয় না। সে ক্ষেত্রে ধারাবাহিকতার সাথে ফরজ কাজ পুনরায় করে অযু শুদ্ধ করে নিতে হয়। সুন্নিমতানুসারে অযুর ফরজ ফরজগুলো হলঃ ১.মুখমন্ডল ধোয়া। ২.দুই হাত কনূই পর্যন্ত ধোয়া। ৩.মাথার এক চতুর্থাংশ মাসেহ করা মসেহ্(ভেজা হাত বুলানো) করা । ৪.দুই পায়ের টাকনু পর্যন্ত ধোয়া। (ক্ষেত্রবিষেসে চামড়ার মোজার উপর মসেহ্ করা যাবে যাকে খুফস বলা হয়। কোরআনে বর্নিত আছেঃ“হে মু’মিনগণ! যখন তোমরা সালাতের জন্য প্রস্তুত হইবে তখন তোমরা তোমাদের মুখমন্ডল ও হাতের কনূই পর্যন্ত ধৌত করিবে এবং তোমাদের মাথায় মসেহ্ করিবে এবং পা গ্রন্থি পর্যন্ত ধৌত করিবে;যদি তোমরা আপবিত্র থাক, তবে বিশেষভাবে পবিত্র হইবে। তোমরা যদি পীড়িত হও অথবা সফরে থাক অথবা তোমাদের কেহ শৌচস্থান হইতে আগমন করে, অথবা তোমরা স্ত্রীদের সহিত সংগত হও এবং পানি না পাও তবে পবিত্র মাটির দ্বারা তায়াম্মুম করিবে এবং উহা তোমাদের মুখমন্ডল ও হাতে মসেহ্ করিবে। আল্লাহ্ তোমাদিগকে কষ্ট দিতে চাহেন না; বরং তিনি তোমাদিগকে পবিত্র করিতে চাহেন ও তোমাদের প্রতি তাঁহার অনুগ্রহ সম্পূর্ণ করিতে চাহেন, যাহাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন কর।“ (সূরা মায়িদা, আয়াত:৬)। শিয়ামতানুসারে অযুর ফরজ ফরজগুলো হলঃ ১.মুখমন্ডল ধোয়া। ২.দুই হাত কনূই পর্যন্ত ধোয়া। ৩.মাথা এক চতুর্থাংশ মসেহ্ করা । ৪.দুই পা ভিজা হাত দ্বারা মাসেহ করা। সুন্নত অযুর করার সময় কিছু কাজ হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) অভ্যাসবশতঃ করতেন যা সুন্নি হাদিস মতে, অযুর সুন্নতের (ঐচ্ছিক কাজ) অন্তর্ভুক্ত। যেমন: *.বিসমিল্লাহ্ বলা। *.দুই হাতের কব্জি পর্যন্ত ধোয়া। *.কুলি করা। *.পানি দিয়ে নাকের ভিতর পরিষ্কার করা। *.সমস্ত মাথা মসেহ্ এবং কানের সংলগ্ন স্থান মসেহ্ করা। *.হাত ও পায়ের আংগুলের মধ্যে ফাকা স্থান হাতের আংগুল দিয়ে ধোয়া। *.দাত পরিষ্কার করা (মেস্ওয়াক করা উত্তম) *.অযুর কাজগুলো তিনবার করে। মুস্তাহাব অযুর কিছু মুস্তাহাবকাজ (করা উত্তম, না করলেও অযু কার্যকর থাকে) আছে। *.অযুর পর কালেমা শাহ্দাতপড়া। *.অযুর দুই কাজের মধ্যে দেরি না করা। *.অযুর সময় আহেতক কথা না বলা। *.পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন স্থানে অযু করা। *.পানির অপচয় না করা। ডান থেকে বামে ধারাবাহিকতার রক্ষা করে অযু করা। অযুর পদ্ধতি সুন্নি মতানুসারে অযুর পদ্ধতি ১. “বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম-আমি নামাযের উদ্দেশে পবিত্রতা লাভের উদ্দেশে ও আল্লাহ্’র সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশে ওযু করিতেছি” বলে প্রথমে দুই হাতের কবজি পর্যন্ত তিনবার ধৌত করতে হবে। ২. পানি নিয়ে তা মুখে দিয়ে ভাল মত কুলি করতে হবে। এভাবে তিনবার। তারপর গড়গড়ার সহিত তিনবার কুলি করতে হবে। (রোজা থাকা অবস্থায় গড়গড়ার সহিত কুলি করতে হবে না) ৩. ডান হাতে পানি নিয়ে নাকে পানি দিয়ে বাম হাতের বৃদ্ধাংগুলি,আর কনিষ্ঠাংগুলি দ্বারা নাকের ভিতর পরিষ্কার করতে হবে। এমনভাবে পানি প্রবেশ করাতে হবে যেন নাকের নরম জায়গা পর্যন্ত পানি পৌঁছায়। এইভাবে পর পর তিনবার করতে হবে। ৪. এবারে মুখমন্ডল অর্থাৎ কপালের উপরে যেখান থেকে স্বাভাবিকভাবে মাথার চুল গজায় সেখান থেকে নিচের থুতনির নীচ পর্যন্ত এবং এক কানের লতি থেকে আরেক কানের লতি পর্যন্ত মধ্যবর্তী স্থান, পানি দিয়ে তিনবার ধৌত করতে হবে। দাঁড়ি থাকলে তা খিলাল করতে হবে। যেন দাঁড়ি পরিষ্কার হয় এবং সম্ভব হলে দাঁড়ির গোড়ায় পানি পৌঁছায়। এভাবে তিনবার করতে হবে। ৫. পানি দ্বারা প্রথমে ডান হাত কনুই পর্যন্ত তিনবার ভালভাবে ঘষে ঘষে পরিষ্কার করতে হবে। তারপর একই ভাবে বাম হাতও পরিষ্কার করতে হবে। কারো হাতে আংটি থাকলে দেখতে হবে আংটির নিচেও যেন পানি প্রবেশ করে। ৬. মাথা মাসেহ করার নিয়ম বৃদ্ধাংগুলি আর শাহাদাত আংগুলি আলাদা রেখে দুই হাত দিয়ে কপালে চুল শুরু হবার জায়গা থেকে পিছনে মাথার এক-চতুর্থাংশ মাসেহ করতে হবে। তারপর একই ভাবে হাত উল্টিয়ে মাথার তিন-চতুর্থাংশ পিছন থেকে সামনে মাসেহ করতে হবে। এবারে শাহাদাত আংগুলি দ্বারা কানের ভিতরের অংশ আর বৃদ্ধাংগুলি দ্বারা কানের বাইরের অংশ পরিষ্কার করতে হবে। এরপর হাতের পিছনের অংশ দিয়ে ঘাড় মাসেহ করতে হবে। ৭. পানি ঢেলে প্রথমে ডান পায়ের টাখনু বা গোঁড়ালি পর্যন্ত ভালভাবে পরিষ্কার করতে হবে এমনভাবে যেন সমস্ত জায়গা পানি পোঁছে। একই ভাবে বাম পা ধৌত করতে হবে। এভাবে তিনবার। শিয়া মতানুসারে অযুর পদ্ধতি অযু ভঙ্গের কারণসমুহ কোন ব্যক্তি অযু করার পর কিছু নির্দিষ্ট কাজ না করলে তার অযু অবিরত বলবৎ থাকে। ঐ কাজগুলো করার মাধ্যমে অযু অকার্যকর হয় যা অযু ভেঙ্গে হওয়াও বলে। উযু ভঙ্গের কারণ ৭টি: 1. পায়খানা-পেশাবের রাস্তা দিয়ে কোন কিছু বের হওয়া। 2. মুখ ভরে বমি হওয়া। 3. শরীরের ক্ষতস্থান হতে রক্ত, পুঁজ বা পানি বের হয়ে গড়িয়ে পড়া। 4. থুথুর সঙ্গে রক্তের ভাগ সমান বা বেশি হওয়া। 5. চিৎ, কাৎ বা হেলান দিয়ে ঘুম যাওয়া। 6. পাগল, মাতাল বা অচেতন হওয়া। 7. নামাযে উচ্চ আওয়াজে হাসা। ধূমপান অধিকাংশ ইসলাম বিশেষজ্ঞদের মতে, ধূমপান করলে অযু নষ্ট হয় না।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
21 অক্টোবর 2018 "পড়াশোনা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Sirazul islam (2,716 পয়েন্ট) 25 145 479
1 উত্তর
06 অগাস্ট 2018 "ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Sajjad Jayed (10,124 পয়েন্ট) 136 610 1524
1 উত্তর
29 এপ্রিল 2018 "ফেসবুক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন manik prize (196 পয়েন্ট) 16 78 217

27,281 টি প্রশ্ন

28,972 টি উত্তর

3,087 টি মন্তব্য

2,209 জন সদস্য



আস্ক প্রশ্ন এমন একটি প্ল্যাটফর্ম, যেখানে কমিউনিটির এই প্ল্যাটফর্মের সদস্যের মাধ্যমে আপনার প্রশ্নের উত্তর বা সমস্যার সমাধান পেতে পারেন এবং আপনি অন্য জনের প্রশ্নের উত্তর বা সমস্যার সমাধান দিতে পারবেন। মূলত এটি বাংলা ভাষাভাষীদের জন্য একটি প্রশ্নোত্তর ভিত্তিক কমিউনিটি। বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার পাশাপাশি অনলাইনে উন্মুক্ত তথ্যভান্ডার গড়ে তোলা আমাদের লক্ষ্য।

  1. Sagor hossain

    214 পয়েন্ট

    59 উত্তর

    13 প্রশ্ন

  2. রবিউল ইসলাম রাবি

    65 পয়েন্ট

    5 উত্তর

    0 প্রশ্ন

  3. মোরশেদ খান

    60 পয়েন্ট

    4 উত্তর

    2 প্রশ্ন

  4. জুয়েল রানা

    58 পয়েন্ট

    22 উত্তর

    2 প্রশ্ন

  5. Samera Prokash

    53 পয়েন্ট

    1 উত্তর

    0 প্রশ্ন

শীর্ষ বিশেষ সদস্য

126 টি পরীক্ষণ কার্যক্রম
71 টি পরীক্ষণ কার্যক্রম
28 টি পরীক্ষণ কার্যক্রম
10 টি পরীক্ষণ কার্যক্রম
7 টি পরীক্ষণ কার্যক্রম
...